1. admin@chapaisangbad.net : কপোত নবী : কপোত নবী
  2. kapotnabi17@gmail.com : Kapot Nabi : Kapot Nabi
News Headline :
রাজশাহী সাংবাদিক ঐক্য পরিষদকে কুটুক্তি করায় আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত চাঁপাইনবাবগঞ্জে করোনা সংক্রমণের হার নিম্নমুখী না হওয়ায় বিশেষ বিধিনিষেধ আরও ৭ দিন আধিপত্য বিস্তারের জের ধরে মহারাজপুরে দু’পক্ষের ককটেলবাজী ॥ এলাকায় আতংক চাঁপাইনবাবগঞ্জে ১০ লাখ টাকার চিকিৎসা সামগ্রী দিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য জাবীন মাহবুব চাঁপাই সংবাদে গণ্যমাধ্যম কর্মীর ডায়েরি – আজ মনোয়ার হোসেন জুয়েল-১ শিয়ালমারা ও সোনামসজিদ সীমান্তে ভারতীয় রুপিসহ ও ইয়াবাসহ হোটেল মালিকসহ আটক-২ দৈনিক চাঁপাই দর্পণ ও দর্পণ টিভি পরিবারের পক্ষ থেকে তাজকির-উজ-জামানকে বিদায় সংবর্ধনা ২০ কেজি গাঁজা নিয়ে শিবগঞ্জের ২ যুবক আটক – র‌্যাব-৫ মোল্লাপাড়া ক্যাম্প সোনামসজিদে জুম কনফারেন্সে নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রীর বক্তব্য- শিমুল এমপি প্রধান অতিথি
চাঁপাইনবাবগঞ্জে ক্যান্সারে দু’চোখ হারানো ছোট্ট ফুটফুটে শিশুকে অর্থ সহায়তার চেক প্রদান

চাঁপাইনবাবগঞ্জে ক্যান্সারে দু’চোখ হারানো ছোট্ট ফুটফুটে শিশুকে অর্থ সহায়তার চেক প্রদান

চাঁপাই সংবাদ রিপোর্ট, কপোত নবী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ : চাঁপাইনবাবগঞ্জে দু’চোখ হারানো ছোট্ট ফুটফুটে শিশু মাশরাফিকে চিকিৎসার জন্য ৫০ হাজার টাকার অর্থ সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। পৌর এলাকার ২ নং ওয়ার্ডের হুজরাপুর রেল বাগান এলাকার গরীব অসহায় শ্রমিক শাকিল আহমেদ ও মোসা. রাজেফা খাতুনের ছেলে।

শিশু মাশরাফি

গত ৬ মে জেলা প্রশাসক ও জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক মোসা. উম্মে কুলসুম সাক্ষরিত ৫০ হাজার টাকার চেক প্রদান করা হয়।

এ বিষয়ে শিশু মাশরাফির মা রাজেফা খাতুন এ প্রতিবেদককে জানান, আমার ছোট্ট ছেলে মাশরাফির ৬ মাস বয়সে দুই চোখেই ক্যান্সার ধরা পড়ে। তিনি আরও জানান, সম্প্রতি চিকিৎসকের পরামর্শে শরীরে ক্যান্সার ছড়ানো বন্ধে অস্ত্র পচারের মাধ্যমে দুটি চোখই অপসারণ করা হয় বলেই কেঁদে উঠেন অবুজ ছোট্ট শিশুর মা রাফেজা।

এ বিষয়ে তরুণ ও নবীন নারী উদ্যোক্তা, মহিলা ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী নাজনীন ফাতেমা জিনিয়া এ প্রতিবেদককে জানান, সমাজসেবা অধিদপ্তরের অনুদানে জেলা প্রশাসক মো.মুঞ্জুরুল হাফিজ’র কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকার চেক প্রদান করা হয়েছে শিশুটির মায়ের হাতে। এহেন মানবিক সহযোগিতার জন্য বিশেষ কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি সমাজসেবা অফিসার ইমতিয়াজ কবির স্যারকে।

নাজনিন ফাতেমা জিনিয়া আরও জানান, শিশুটির পরিবার নিতান্তই গরীব। বাবা যখন যা কাজ পাই তাই করে যা রোজগার করে, শ্রমিক হিসেবে কাজ করে যতটুকু হয় সেটা থেকেই চলে সবকিছু সংসার। সেখানে শিশুটির চিকিৎসার জন্য খরচ যোগাতেও হিমশিম খেতে হয়। ঠিক এমন সময় পরিবারটির হাতে অর্থ সহায়তা করেন, সমাজসেবা ও জেলা প্রশাসন চাঁপাইনবাবগঞ্জ।

নাজনিন ফাতেমা জিনিয়া আরও বলেন, শিশুটিকে সহায়তা পাইয়ে দিতে আমি সাধ্যমত চেষ্টা করেছি। আর এ সফল প্রচেষ্টার সাথে যুক্ত থাকতে পেরেও আমি অনেক আনন্দিত । সমাজের প্রতি আমার দায়বদ্ধতা মানুষের জন্য কাজ করার অনুপ্ররণা।

অসহায় গরীব ঘরের ছোট্ট শিশুটি কি তার দু’চোখে আলো কখনও ফিরে পাবে না? অন্ধকার জগৎ থেকে আলো ফিরিয়ে দিতে তার চোখ প্রতিস্থাপন করা কি যায় না। সমাজের উঁচু মহল, সরকারসহ কেউ কি নেই শিশুটির চিকিৎসার ব্যবস্থা করবে?আলো ফিরিয়ে দিতে কেউ কি আসবে না?সারাটা জীবনই কি অন্ধকারেই থেকে যাবে মাশরাফি?

Please Share This Post in Your Social Media




© All rights reserved © 2021 Chapai Sangbad

Customized BY innovativenews